খেলাধুলা

বৃষ্টিতে খেলা না হলে ফাইনালে যাবে যে দল

বৃষ্টিতে খেলা না হলে ফাইনালে যাবে যে দল

বৃষ্টিতে খেলা না হলে ফাইনালে যাবে যে দল

চলমান বিশ্বকাপের শুরু থেকেই দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলছে দক্ষিণ আফ্রিকা। সেমিফাইনালে উঠতে খুব বেশি কষ্ট করতে হয়নি প্রোটিয়াদের। দ্বিতীয় দল হিসেবেই শেষ চার নিশ্চিত করে তারা। তবে দলটির সবচেয়ে বড় বাধা যে-সেমিফাইনাল। চোকার তকমা ঝেড়ে ফাইনালের টিকিট কাটতে আজ পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি টেম্বা বাভুমার দল।

বৃস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) কলকাতায় বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক টেম্বা বাভুমা। এখনও পর্যন্ত ১৪ ওভার শেষে ৪ উইকেট হারিয়ে ৪৪ রান তুলেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। দলটির ব্যাটিং বিপর্যের ম্যাঝে হানা দিয়েছে বৃষ্টি। অবশ্য গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি ছিল আগে থেকেই। এবার আম্পায়াররা বন্ধ করে দিয়েছেন খেলা। দক্ষিণ আফ্রিকার যে অবস্থা, তাতে এ বিরতিতে স্বস্তিই পাওয়ার কথা তাদের। এ ম্যাচে রিজার্ভ ডে আছে।

টস জিতে ব্যাট করতে নামার পর ধারণা ছিল, প্রোটিয়াদের উড়ন্ত সূচনা হবে। হয়তো কলকাতায় আজ রান বন্যা দেখা যাবে। কিন্তু তার ছিটেফোটাও দেখা যাচ্ছে না। বরং, উল্টো দক্ষিণ আফ্রিকাকে শুরু থেকেই চেপে ধরেছে অস্ট্রেলিয়া। একদিকে তারা যেমন উইকেট তুলে নিচ্ছে, অন্যদিকে রানও আটকে রেখেছে। দারুণ নিয়ন্ত্রিত বোলিং এবং ফিল্ডিংয়ে- দক্ষিণ আফ্রিকাকে পুরোপুরি বেধে ফেলেছে বলা যায়।

আউট হয়ে ফিরে গেছেন কুইন্টন ডি কক (৩), টেম্বা বাভুমা (০), রাসি ফন ডার ডুসেন (৬) এবং এইডেন মার্করাম (০)। প্রথম ওভারের শেষ বলেই মিচেল স্টার্ক ফিরিয়ে দেন টেম্বা বাভুমাকে। উইকেটের পেছনে জস ইংলিশের হাতে ক্যাচ দেন প্রোটিয়া অধিনায়ক। ৪ বলে কোনো রানই করতে পারেননি তিনি।

চলুন জেনে নেই বৃষ্টির কারণে ম্যাচটি আজ মাঠে না গড়ালে কি হবে :

রিজার্ভ ডে কখন কাজ করবে?
রিজার্ভ ডে-তে যাওয়ার আগে আম্পায়াররা নির্ধারিত দিনে ম্যাচটি শেষ করার সব চেষ্টাই করবেন। এমনকি ওভার কমিয়ে হলেও প্রতি দলের জন্য সর্বনিম্ন ২০ ওভার করে ম্যাচ পরিচালনার চেষ্টা করা হবে। তখনো যদি ম্যাচটা সেদিন শেষ করা না যায় তা হলে বাড়তি দিন তথা রিজার্ভ ডের প্রয়োজন পড়বে। গত বিশ্বকাপেও ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ভারত-নিউজিল্যান্ডের সেমিফাইনালে রিজার্ভ ডের প্রয়োজন পড়েছিল।

রিজার্ভ ডে কীভাবে ব্যবহৃত হবে?
নির্ধারিত দিনে ম্যাচটা যদি শেষ করা না যায় তখন রিজার্ভ ডে প্রয়োজন পড়বে। এ ক্ষেত্রে চূড়ান্তভাবে কখন বৃষ্টি হানা দিচ্ছে তার ওপর ভিত্তি করে দুটি বিষয় মাথায় রাখা হবে।

উদাহরণ হিসেবে প্রথমত, ম্যাচটা ৫০ ওভার মেনেই শুরু হলো। ১৯তম ওভারে গিয়ে বৃষ্টি হানা দিল। তার পর ওভার কমে দাঁড়াল ৪৬। তার পর কার্টেল ওভারে খেলা শুরু হওয়ার কথা। দেখা গেল খেলা শুরুর আগে আবার বৃষ্টির হানা এবং দিনটি পরিত্যক্ত। যেহেতু নির্ধারিত দিনে ওভার কমিয়েও ম্যাচ শুরু করা যায়নি। তখন রিজার্ভ ডেতে ৫০ ওভার হিসেবেই ম্যাচটা পুনরায় শুরু করা হবে। তখনো বৃষ্টি হানা দিলে প্রয়োজনে রিজার্ভ ডে-তে ওভার কমিয়ে খেলা শুরুর চেষ্টা করা হবে।

দ্বিতীয়ত, প্রথম উদাহরণের মতোই খেলা শুরু হলো। দেখা গেল ১৯ ওভার পর নামল বৃষ্টি… তার পর ওভার কমে দাঁড়াল ৪৬ ওভারে। এবার খেলা শুরু করা গেল ঠিকই কিন্তু এক ওভার শেষ হওয়ার পর দেখা গেল আবার বৃষ্টি। তার পর দিনটা পরিত্যক্ত! সে ক্ষেত্রে রিজার্ভ ডেতে ৪৬ ওভার হিসেবেই ম্যাচটা পুনরায় চালু হবে। এ ক্ষেত্রে বৃষ্টির কারণে প্রয়োজন পড়লে রিজার্ভ ডেতেও ওভার কমিয়ে খেলা পরিচালনার ব্যবস্থা করা হবে।

ম্যাচের ফল না হলে তখন কী হবে?
যদি দুই দিনেও সর্বনিম্ন ২০ ওভারে ম্যাচ শেষ করা না যায়, কোনো ফল না আসে। তখন গ্রুপ পর্বে যে দলটি শীর্ষ স্থানে ছিল সেই দলটি ফাইনালে চলে যাবে। যেমন অস্ট্রেলিয়া-দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচে এমনটা হলে প্রোটিয়ারই ফাইনালে চলে যাবে। আর ১৯ নভেম্বর ভারতের বিপেক্ষ শিরোপা নির্ধরণী ম্যাচ খেলবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button